ছাত্রলীগ কর্মীকে মারধরকারীদের গ্রেফতারের দাবিতে রাস্তা অবরোধ

  • 19
    Shares

রাজশাহী প্রতিনিধি : ছাত্রলীগের কর্মীকে মারধরকারীদের গ্রেফতারের দাবিতে রাস্তা অবরোধ ও উপজেলা চেয়ারম্যানের কার্যালয় ঘেরাও করে রাখে আওয়ামী লীগের কর্মী-সমর্থকরা। এনিয়ে আওয়ামী লীগের দু’পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে পুলিশ পরিস্থিতি শান্ত করে। বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) দুপুর বাঘা উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে এই ঘটনা ঘটে। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ছাত্রলীগ কর্মীর নাম সোহাগ হোসেনকে মারধরের ঘটনায় গ্রেফতারের দাবিতে রাস্তা অবরোধ করে রাখা হয়। এনিয়ে আওয়ামী লীগের দু’পক্ষের মধ্যে চরম উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। পরে পুলিশ গিয়ে বাঘা পৌরসভার প্যানেল মেয়র ও কাউন্সিলর শাহীনুর রহমান পিন্টুর কর্মী-সর্মথকদের সরিয়ে দিলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। জানা যায়, একটি অনলাইন টকশোতে বাঘা উপজেলা চেয়ারম্যান এ্যাড. লায়েব উদ্দিন লাভলু ও বাঘা পৌরসভার সাবেক মেয়র এবং আওয়ামীলীগ নেতা আক্কাছ আলী স্থানীয় রাজনীতির বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে বক্তব্য দেয়াকে কেন্দ্র করে এই ঘটনা ঘটছে বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেন। বাঘা পৌরসভার প্যানেল মেয়র ও কাউন্সিলর শাহীনুর রহমান পিন্টু দাবি করে বলেন, আমার সমর্থিত গাওপাড়া গ্রামের দবির উদ্দিনের ছেলে ছাত্রলীগ কর্মী সোহাগ হোসেন বৃহস্পতিবার সকালে বাঘা বাজারে মাছ বিক্রি করতে যায়। এসময় উপজেলা চেয়ারম্যানের সমর্থক সানোয়ার হোসেন সুরুজ তাকে মারপিট করে। এই মারপিট করায় আমার সমর্থকরা মারপিট কারীদের গ্রেফতারের দাবিতে রাস্তা অবরোধ করে। তবে উপজেলা চেয়ারম্যানের কার্যালয় ঘেরাও করা হয়নি। উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সানোয়ার হোসেন সুরুজ বলেন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল মুকাদ্দেস আলীর ভাতিজার সঙ্গে প্যানেল মেয়র শাহীনুর রহমানের এক কর্মীর বিরোধের জের ধরে এই ঘটনা ঘটেছে। বাঘা উপজেলা চেয়ারম্যান এ্যাড. লায়েব উদ্দিন লাভলু বলেন, আমার ওপর হামলার উদ্দেশ্যে বাঘা পৌরসভার প্যানেল মেয়র শাহীনুর রহমান পিন্টুর লোকজন লাঠি-সোঠা নিয়ে আমার উপজেলা কার্যালয়ের সামনে গিয়ে অবস্থান নেয়। এসময় আমি কার্যালয়ে না থাকায় গালিগালাজ করতে থাকে। পরে রাস্তা অবরোধ করে। পরে খবর পেয়ে পুলিশ তাদের সরিয়ে দেয়। এবিষয়ে বাঘা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নজরুল ইসলাম বলেন, স্থানীয় আওয়ামী লীগের মধ্যে একটি ঝামেলা হয়েছিলো। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *