July 1, 2022, 4:13 am
শিরোনাম :
শিহাবের মৃত্যু: সৃষ্টি স্কুলের ৯ শিক্ষক আটক বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় ইন্টারন্যাশনাল অ্যাফেয়ার্স কাউন্সিলের ‘ইন্ট্রোডাকশন টু এসডিজিজ’ শীর্ষক ওয়ার্কশপ অনুষ্ঠিত ইয়েস বাংলাদেশের আয়োজনে তিন দিনব্যাপী সাংবাদিকদের প্রশিক্ষণ কর্মশালা এনসিটিএফ’র আয়োজনে তিন দিনব্যাপী সাংবাদিকদের প্রশিক্ষণ কর্মশালা শুরু বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ৭ম একাডেমিক কাউন্সিল সভা অনুষ্ঠিত রাবির নবনিযুক্ত উপাচার্যকে ও উপ-উপাচার্যকে বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের শুভেচ্ছা প্রদান “আত্মবিশ্বাস আসে জ্ঞান থেকে” বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় ক্যারিয়ার ওয়েবিনারে সোলায়মান সুখন বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় ও বরেন্দ্র উন্নয়ন প্রচেষ্টা’র সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টের স্থায়ী ক্যাম্পাস পরিদর্শন জাতীয় শোক দিবসে বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের “ওয়েবিনার ও অনলাইন কুইজ প্রতিযোগিত “

দেড় লাখের বেশি চাকরিপ্রার্থীর আবেদনের বয়স শেষ

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, মে ৩, ২০২১
  • 8 Time View

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অনার্স, মাস্টার্স শেষ করেন রুবেল আহমেদ। চাকরির আবেদনের বয়স শেষ হয়েছে তিন মাস। করোনার কারণে গত এক বছরে আসেনি তেমন কোনো বিজ্ঞপ্তি, করতে পারেননি আবেদনও। টিউশনিও বন্ধ হওয়ায় তার সামনে এখন বড় অনিশ্চয়তায়। করোনাকালে চাকরির বয়স শেষ হয়েছে দেড় লাখের বেশি প্রার্থীর। এক বছরের বেশি সময় ধরে তেমন কোনো পরীক্ষায়ও বসতে পারেনি তারা। তাদের এ ক্ষতি কীভাবে পোষানো যায় তা নিয়ে পরিকল্পনা করছে মন্ত্রণালয়। পাশাপাশি পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে দেয়া হবে আটকে থাকা প্রজ্ঞাপনও।

চাকরি প্রত্যাশীদের নিয়ে কাজ করা সংগঠন বলছে, করোনাকালে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হয়েছে মাত্র ১৩ শতাংশ। অনেক বিজ্ঞপ্তিই আসেনি। এ সময়ে চাকরির বয়স শেষ হয়েছে দেড় লাখের বেশি প্রার্থীর। সংকট কাটাতে তাই আবেদনের বয়স বাড়ানোর দাবি তাদের। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের আগের সিদ্ধান্তে, ২০২০ সালের ২৫ মার্চ যাদের বয়স ৩০ বছর হয়েছে তারা আরও ৫ মাস, ২৫ আগস্ট পর্যন্ত আবেদনের সুযোগ ছিল। তবে করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়ায়- মন্ত্রণালয় বলছে, এ ক্ষতি কীভাবে পোষানো যায়, তা নিয়ে কাজ চলছে।

সেই সঙ্গে, যেসব চাকরির বিজ্ঞপ্তি আটকে আছে সেগুলো, করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার পর পরই দেয়া হবে বলেও আশ্বস্ত করেছে মন্ত্রণালয়।
সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়স বিষয়টি দেশের তরুণদের কাছে অবিচার হিসেবে ধরা দিচ্ছে। বর্তমান বাংলাদেশে একসময় সরকারি চাকরিতে প্রবেশের সর্বোচ্চ বয়স ছিল ২৫ বছর। স্বাধীন বাংলাদেশের শুরু দিক থেকেই এই বয়স ২৭ বছরে উন্নীত করা হয়। ১৯৮০-এর দশকে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোয় সেশনজটের ফলে শিক্ষার্থীদের অধিকাংশ স্নাতক, বিশেষত স্নাতকোত্তর শিক্ষা ২৭ বছর বয়সের মধ্যে শেষ করতে পারছিল না। ১৯৭৫ থেকে ১৯৯০ পর্যন্ত প্রায় ১৫ বছরের সামরিক-আধা সামরিক শাসনের পর নতুনভাবে দেশে সংসদীয় গণতন্ত্র ফিরে এলে সরকার বিষয়টি অনুধাবন করে ১৯৯১ সালে চাকরিতে প্রবেশের বয়স তিন বছর বাড়িয়ে ৩০ বছরে উন্নীত করে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2022 shikkhajob.com
Developed by: MUN IT-01737779710
Tuhin